প্রতিদিন ৪-৫ হাজার টাকা ইনকাম করার ব্যবসা আইডিয়া top Business Idea in Bangladesh

 আমরা প্রায় সবাই ব্যবসা করতে চাই। আর ব্যবসা করে যদি ৪-৫ হাজার টাকা ইনকাম না হয় তাহলে তো তেমন লাভই হয় না। অল্প সময়ে ঠিক কোন ব্যবসাটি করে মার্কেট এর চাহিদা রেখে প্রতিদিন চার থেকে পাঁচ হাজার টাকা ইনকাম করা যায়। ভাবুন তো?

আজকের পোস্ট এর মাধ্যমে জানতে পারবেন কিভাবে ব্যবসা করে মাসে অনেক টাকা ইনকাম করতে পারবেন তার কিছু আইডিয়া। অতিরিক্ত মূলধন ছাড়াই কিভাবে প্রতিদিন ৪-৫ হাজার টাকা ইনকাম করতে পারেন সেটাই আজকের আলোচনার বিষয়।

প্রতিদিন ৪-৫ হাজার টাকা আয় করার ব্যবসা আইডিয়া

ব্যবসা করে প্রতি মাসে অনেক টাকা ইনকাম করা যায় কিন্তু আমরা অনেকেই চিন্তার মধ্যে পরে যাই আসলে কিভাবে ব্যবসা শুরু করবো এবং কি নিয়ে ব্যবসা শুরু করবো। আজকে আপনাদের সাথে এমন কিছু ব্যবসার আইডিয়া নিয়ে খুটিনাটি শেয়ার করবো যাতে আপনি আপনার মেধা ও ইন্টারনেটকে কাজে লাগিয়ে প্রতি মাসে ভালো পরিমান টাকা ইনকাম করতে পারেন। ব্যবসা এমন একটি প্ল্যাটফর্ম যেখানে আপনার মেধা ও শ্রমকে কাজে লাগিয়ে ব্যবসাকে প্রতিষ্ঠিত করে তুলতে হবে। কিভাবে ব্যবসায় সফল হবেন এবং কিভাবে শুরু করবেন সেটি নিয়েই আজকের আলোচনা।

ইন্টারনেট এর মাধ্যমে ব্যবসা

বর্তমানে ইন্টারনেট ব্যবহার করে না এমন মানুষ খুবই কম। আমাদের সমাজে প্রতিনিয়ত ইন্টারনেট ব্যবহারকারীর সংখ্যা বাড়ছে। আমাদের বাস্তব জীবনে ইন্টারনেট এর ব্যবহার হুরহুর করে বাড়ছে। ইন্টারনেট ব্যবহার করে অনলাইনে ব্যবসা করা সম্ভব। বর্তমানে বেশিরভাগ কাস্টমার ঘরে বসে নিজের প্রয়োজনীয় পন্যটি কিনে নিচ্ছে ই-কমার্স ব্যবহার করে। পন্য ক্রয় থেকে শুরু করে মূল্য পরিশোধ পুরাটাই এখন অনলাইনে হচ্ছে। দিন দিন ই-কমার্স এর চাহিদা বেড়েই চলছে। ঘরে বসে পন্য পাওয়ার সহজলভ্যতা এবং দূর্লভ পন্য (যেগুলো লোকাল বাজারে পাওয়া যায় না) এমন পন্য  ক্রয় বিক্রয়ের ক্ষেত্রে ই-কমার্স বড় ভূমিকা পালন করছে। তো চলুন আমরা কিভাবে অনলাইনে ব্যবসা শুরু করতে পারি সেটা নিয়ে কথা বলি। কিন্তু তার আগে আপনাদের কিছু জিনিস এর প্রয়োজন হবে।

প্রতিদিন ৪-৫ হাজার টাকা ইনকাম করার ব্যবসা আইডিয়া। হস্তশিল্প ব্যবসা আইডিয়া। top Business Idea in bangladesh

অনলাইনে বা ই-কমার্স ব্যবসা করতে কি কি লাগে

  • নির্দিষ্ট একটা জায়গা বা এরিয়াকে টার্গেট করে ব্যবসা শুরু করা যেতে পারে। এই ক্ষেত্রে আপনার থানা/উপজেলা ভিত্তিক বা জেলা ভিত্তিক অথবা দেশকে টার্গেট করে শুরু করতে পারেন তবে সেটা নির্ভর করছে আপনার সিদ্ধান্তের উপর।
  • আপনার একটি কম্পিউটার/ মোবাইল ফোন এবং ইন্টারনেট সংযোগ লাগবেই।
  • আপনার পন্যটি কাস্টমারদের কাছে পৌছানোর জন্য একটি মাধ্যম লাগবে। যেমন- ই-কমার্স ওয়েবসাইট বা ফেইসবুক পেজ/ ইউটিউব চ্যানেল। সবগুলো থাকলে আরো ভালো।
  • আপনার পন্যগুলো প্রচারের জন্য উপরের যে কোনো একটা মাধ্যম লাগবেই।
  • আপনাকে সবসময় চাহিদা সম্পন্ন নতুন নতুন পন্য বিক্রয় করতে হবে।
  • কাস্টমারদের সাথে ভালো ব্যবহার এবং পন্য সম্পর্কে তাদের সাথে সুন্দর করে কথা বলতে হবে।
  • আপনি যদি নির্দিষ্ট একটা এলাকা নিয়ে কাজ করেন তবে পন্য ডেলিভারি দেওয়ার জন্য সাইকেল বা মোটরসাইলে এর প্রয়োজন হবে।
  • চাইলে ডেলিভারী ম্যান নিয়োগ দিতে পারেন অথবা প্রথম দিকে আপনি নিজেও ডেলিভারি দিতে পারেন।
  • মার্কেট ধরে রাখতে অবশ্যই সবসময় ভালো পন্য দিতে হবে। কোনো সময় খারাপ পন্য কাস্টমারের হাতে চলে গেলে সেটা ফেরত দেওয়ার অপশন ও রাখতে হবে।
  • সময়মত পন্য কাস্টমারের হাতে পৌছে দিতে হবে। 
See also  অনলাইনে ইনকাম করার উপায় ২০২৩, how to earn money online

উপরের সকল নিয়মগুলো মেনে চললে আপনার ব্যবসার আস্থা বৃদ্ধি পাবে। এবং আপনার ই-কমার্স প্রতিষ্ঠানটি জনপ্রিয় হয়ে উঠবে।

সেরা ব্যবসা আইডিয়া ২০২৩

আপনি যে কোনো পন্য নিয়ে অনলাইনে ব্যবসা শুরু করতে পারেন। সেটা যে কোনো কিছু হতে পারে যেমন- জামা-কপড়, বইখাতা, খেলনা, গিফ্ট আইটেম, ইলেক্ট্রনিক পন্য, বিভিন্ন প্রয়োজনীয় জিনিস গ্যাজেট ইত্যাদি নিয়ে বা এর সবকিছু নিয়েও চাইলে ই-কমার্স ব্যবসা করা যায়। বর্তমানে অনেক বিখ্যাত ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান রয়েছে যেগুলোতেও আপনার নিজের প্রডাক্ট বিক্রি করতে পারবেন এবং সেখানের প্রডাক্ট গুলো বিক্রি করিয়েও ইনকাম করতে পারবেন যদি আপনার কাছে নিজের প্রডাক্ট না থাকে। কিছু জনপ্রিয় ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান যেমন- bikroy.com, daraz.com, bdshop.com, rokomari.com, ajkerdeal.com এছাড়াও আরো অনেক প্রতিষ্ঠান আছে। এছাড়া আপনি যদি বিভিন্ন হাতের কাজ জানেন তবে সেটাকে কাজে লাগিয়ে বিভিন্ন পন্য তৈরি করে অনলাইনে বিক্রয় করতে পারেন।

হস্তশিল্পের ব্যবসায়িক আইডিয়া

বর্তমানে জনপ্রিয় ব্যবসাগুলোর মধ্যে অন্যতম হস্তশিল্প ব্যবসা। হস্তশিল্প ব্যবসা করে আপনি প্রতিদিন ৪-৫ হাজার টাকা ইনকাম করতে পারবেন। বর্তমানে অনেক পরিবার এই হস্তশিল্প ব্যবসা করে আয় রোজগার করছে। ঘর বাড়ী সাজানো সবাই পছন্দ করে। ঘর বাড়ী সাজানোর ক্ষেত্রে বা ঘরের কোনো একটা অংশে হস্তশিল্পের তৈরি কোনো সুন্দর জিনিস সাজিয়ে রাখে প্রায় সবাই। এই ব্যবসা করতে আপনার তেমন মূলধন প্রয়োজন হবে না। সামান্য কিছু টাকা নিয়ে এই ব্যবসা শুরু করতে পারেন। এখানে আপনার হাত ও মেধাকে কাজে লাগিয়ে বিভিন্ন জিনিস তৈরি করবেন এবং সেগুলো বিক্রি করবেন। হস্তশিল্পের তৈরি জিনিসপত্র আপনি অনলাইনে ভালো মার্কেটিং করে বিক্রি করে মাসে ভালো পরিমান ইনকাম করতে পারবেন। আপনার পন্য বিক্রয় শুরু হলে দেখাদেখি অনেকেই পন্য ক্রয় করবে এতে আপনার ব্যবসার পরিধি বৃদ্ধি পাবে। নিচে কয়েকটি হস্তশিল্প ব্যবসা নিয়ো আলোচনা করলাম।

See also  ফাইভার কি, ফাইভার একাউন্ট তৈরি, ফাইভার থেকে আয় করার উপায় 2023

মাটির তৈরি জিনিসপত্র

বর্তমান যুগে এসে যদিও মাটির তৈরি কুমারদের জিনিসপত্র তৈরি হারিয়ে যাচ্ছে কিন্তু আমাদের বাংলার ঐতিহ্যকে ধরে রাখতে এগুলো আবার সাড়া ফেলছে। এখনও মাটির তৈরি জিনিসপত্রের চাহিদা অন্য লেভেলের। থালা-বাসন, ঘর সাজানোর বিভিন্ন শোপিস, বাচ্চাদের খেলার সামগ্রি মাটি দিয়ে তৈরি হচ্ছে। বর্তমানে থালা বাসনের চাহিদা কম থাকলেও ঘর সাজানোর ক্ষেত্রে মাটির জিনিস, শো-পিস ইত্যাদির চাহিদা বাড়ছে। মাটির তৈরি জিনিসপত্র সকলেরই পছন্দের। তাই এটাকে আপনার ব্যবসার হাতিয়ার বানাতে পারেন। আপনার মাটির তৈরি নিপুন জিনিসপত্র গুলো অনলাইনে বা বড় ই-কমার্স প্রতিষ্ঠানের সাথে যোগাযোগ করে বিক্রি করতে পারেন। এতে আপনার বেশি মূলধন প্রয়োজন হবে না। তাই এটি একটি বড় সুযোগ।

পুতুল তৈরি

প্রায় সকলেরই পছন্দের জিনিস খেলনা পুতুল। বিশেষ করে ছোট বাচ্চাদের খেলনা হিসেবে । হস্তশিল্পের ব্যবসা গুলোর মধ্যে পুতুল এর ব্যবসা অন্যতম। বাজারে বিভিন্ন ধরনের পুতুল পাওয়া যায় যেমন মাটির তৈরি পুতুল, কাঠের তৈরি পুতুল, তুলা/ পাটের তৈরি পুতুল। আপনি যদি পুতুল তৈরি করতে পারেন তাহলে আপনি আপনার এই মেধাকে কাজে লাগিয়ে  ইনকামের পথ তৈরী করতে পারেন । পুতুল তৈরির ব্যবসার জন্য আপনার বেশি টাকার প্রয়োজন হবে না সামান্য কিছু টাকা মূলধন নিয়ে আপনি এই ব্যবসা শুরু করতে পারেন। পুতুল গুলো তৈরি করে আপনি অনলাইনেও ওয়েবসাইটের মাধ্যমে অথবা বাজারে পুতুলগুলো বাজারে বিক্রি করতে পারবেন।

কাঠের তৈরি জিনসি পত্র তৈরি

কাঠের তৈরি জিনিসপত্র তৈরি করে আপনি অনলাইনে বা বাজারে বিক্রি করে প্রতি মাসে অনেক টাকা ইনকাম করতে পারবেন। বর্তমানে কাঠের জিনিসের চাহিদা দিন দিন বাড়ছে। আপনি যদি কাঠের কাজ জেনে থাকেন এবং কাঠ দিয়ে বিভিন্ন জিনিসপত্র তৈরি করতে পারেন তবে এটি আপনার জন্য। বিভিন্ন ঘরের আসবাব পত্র যেমন- কাঠের চেয়ার, টেবিল, ছবির ফ্রেম, শোপিস- কলমদানি, কাঠের বাক্স, ফুলদানী, বাচ্চাদের বিভিন্ন খেলনা ইত্যাদি তৈরি করে অনলাইনে বা বাজারে বিক্রি করে মাসে অনেক টাকা ইনকাম করতে পারবেন।

See also  How to Make Money on Upwork for Beginners Online: The Ultimate Guide

নকশি কাঁথা তৈরি

নকশি কাঁথা, পুরনো আমল থেকে গ্রাম বাংলার ঐতিহ্যকে ধরে রেখেছে এই নকশি কাঁথা। হস্তশিল্পের মধ্যে ব্যবসাগুলোর অন্যতম লাভজনক ব্যবসা হলো নকশি কাঁথার ব্যবসা। বাংলাদেশ সহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে এই নকশি কাঁথার নাম সুনাম রয়েছে। গ্রাম বাংলার মানুষের দুঃখ কষ্টের হিসাব নকশি কাঁথার প্রতিটি সুতোয় লেখা আছে। আপনি বা আপনার পরিবারে কেউ যদি এই নকশি কাঁথা তৈরি করতে পারে তাহলে অনলাইনে ফেইসবুজ পেজে/ বা বিভিন্ন ই-কমার্স সাইটে অথবা নিজেই ই-কমার্স খুলে এই ব্যবসা শুরু করতে পারে। নকশি কাঁথা কিন্তু যে কেউ তৈরি করতে পারে না। তাই আপনার প্রতিভাকে কাজে লাগিয়ে সফলতার মুখ দেখতে পারবেন এই ব্যবসা করে।

পাপোশ বা কর্পেট তৈরি

নিত্যদিন এর অন্যতম প্রয়োজনীয় ব্যবহার সামগ্রীর মধ্যে পাপোশ বা কাপের্ট অন্যতম। প্রায় সব জায়গাই এই পাপোশ এর ব্যবহার দেখা যায়। কার্পেট/ পাপোশ তৈরি হয় নারিকেলের ছোবড়া বা পাট এর দড়ি অথবা অন্যান্য সামগ্রি দিয়ে। অল্প পুজিতে এই পাপোশ তৈরির ব্যবসা করা যেতে পার।

পরিশেষে সামান্য কিছু কথা আশা করি আপনারা বুঝবেন। উপরে যেই বিষয়গুলো শেয়ার করলাম। এটা শুরু করলেই যে আপনি প্রতিদিন ৪-৫ হাজার টাকা ইনকাম করতে পারবেন ব্যপারটা এমন নয়। এটা নির্ভর করছে আপনার ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ও সেটার ধরন ও মার্কেটিং এর উপর। আপনি ব্যবসাকে কিভাবে দেখছেন এবং কাস্টমারের কাছে পন্য পৌছে দেওয়ার জন্য কতটা সময় ও বুদ্ধি দিয়ে কাজ করছেন সেটার উপর নির্ভর করছে আপনার ব্যবসা ও সফলতা। তাই আপনার পন্যের মান ও মার্কেটিং এবং সকল নিয়ম কানুন যদি ঠিক মত হয়ে থাকে তাহলে অবশ্যই আপনি প্রতিদিন চার-পাঁচ হাজার টাকা ইনকাম করতে পারবেন উক্ত পন্যগুলো বিক্রয় করে।

আর্টিকেলটি ভালো লাগলে শেয়ার করতে পারেন আপনার বন্ধুদের সাথে। অথবা মতামত জানাতে পারেন কমেন্ট বক্স এ।